স্বাস্থ্যহেলথ টিপস

লকডাউন সময়ে সুস্থ ও সবল থাকতে যা যা করবেন জেনে নিন

লকডাউনলকডাউন সময়ে সুস্থ ও সবল থাকতে যা যা করবেন জেনে নিন

লকডাউন সময়ে সুস্থ ও সবল থাকতে করণীয়ঃ

কোভিড-১৯ করোনাভাইরাসের এখনো কোনো প্রতিষেধক আবিষ্কৃত হয়নি। তাই প্রতিরোধই একমাত্র উপায়। লকডাউন সময়ে সবার শরীরের রোগ প্রতিরোধ বাড়ানোর পাশাপাশি শরীরকে সুস্থ ও সবল রাখার ওপর মনোনিবেশ করা উচিত। এ জন্য যা করতে পারেন:

কাজে ব্যস্ত থাকার জন্যই আমরা সময় মতো নিজের খাবার খেতে পারি না। এর ফলে আমাদের অনেক রকমের শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়। কিন্তু এই লকডাউন থাকাকালীন সময় মতো নিজের খাবার খেয়ে নেওয়ার সুযোগ পাবেন। যে কোনও রকমের তৈলাক্ত খাবার, ঝাল, মশলাদার খাবার এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন। দিনে অন্তত একবার করে ফলের শরবত, পাতিলেবুর শরবত খান যা আপনার শরীর ঠান্ডা রাখবে তার সঙ্গেই ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করবে।

১. লকডাউন সময়ে সক্রিয় থাকুন

লকডাউন সময়ে ঘরে আছেন, তাই বলে বসে থাকবেন না। ঘরের কাজকর্ম করতে করতে ৫ হাজার কদম হাঁটার টার্গেট করুন। ইয়োগা, প্ল্যাংক, স্কিপিং, স্পট জগিংসহ নানা ধরনের ঘরোয়া ব্যয়াম করতে পারেন। সিঁড়ি দিয়ে উঠানামা করুন। এতে আপনার অনেক ধরনের উপকার হবে। ঘুম ভালো হবে, ওজনও বাড়বে না। ঘরে বসে থাকতে থাকতে যে একঘেয়েমি তৈরি হয়েছে সেটাও দূর হবে।

২. খেতে পারেন শুকনো ফল

লকডাউন সময়ে যতটা সম্ভব বাইরে কম বের হওয়াই ভালো। এক্ষেত্রে তার পুষ্টি চাহিদা পূরণে ভালো উৎস হতে পারে শুকনো ফল। ডুমুর, খেঁজুর, অ্যাপ্রিকোটসহ নানা শুকনো ফল স্বাস্থ্যের জন্য বেশি উপকারী।

৩. ভালো চর্বি জাতীয় খাদ্য গ্রহণ

বাদাম বীজ, নারিকেল তেল, ঘি ভালো চর্বির উৎস। এ ধরনের খাবার আপনার মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। পাশাপাশি খসখসে ত্বককেও সুরক্ষা দেবে।

৪. সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করুন

লকডাউন সময়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া খুব কষ্টের তবুও অনলাইন এ  চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ভিটামিন সি ও ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করতে পারেন।

৫. শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে

শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালীর করার উপায় আমাদের রান্নাঘরেই আছে। আদা, গোলমরিচ, হলুদ, দারুচিনি এগুলো খুবই উপকারী। ভালো ঘুমে সাহায্য করে হলুদ ও দুধের মিশ্রণ। এটি শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতাকেও বাড়িয়ে দেয়। এছাড়া ওষধি হিসেবে তুলসির জুড়ি মেলা ভার।

৬. গরম পানির ভাপ

করোনার একটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ শ্বাসকষ্ট। কিন্তু অন্য কারণেও শ্বাসকষ্ট হতে পারে। অনেকে আবার দীর্ঘদিন ধরেই এ ধরনের সমস্যায় ভোগেন। শ্বাস প্রশ্বাস জনিত সমস্যা থাকলে সকালে উঠার পর প্রথম কাজই হতে পারে গরম পানির ভাপ নেওয়া। দিনে ১/২বার এটি করতে পারেন।

জেনে নিন করোনা ভাইরাস ও অন্যান্য মহামারির ইতিহাস

0

Leave a Reply

%d bloggers like this: